আন্তর্জাতিক

আইসিইউতে করোনা রোগীর মৃত্যু নিয়ে এক নার্সের রোমহর্ষক বর্ণনা!

সারা বিশ্বে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস। আর করোনায় আক্রান্ত সঙ্কটজনক অবস্থার রোগীদের জন্য ভেন্টিলেটারের ভূমিকা বিশাল। ভেন্টিলেটার থাকার ওপর অনেক সময় ওই রোগীর জীবন মৃত্যু নির্ভর করে। ভেন্টিলেটার তাদের ফুসফুসে কৃত্রিমভাবে অক্সিজেন জোগায় এবং কার্বন ডাই অক্সাইড বের করে আনে অর্থাৎ রোগী যখন নিজে নিজে শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে পারে না, তাকে কৃত্রিমভাবে শ্বাস নেওয়ায় ভেন্টিলেটার।

কিন্তু এই ভেন্টিলেটারে দেয়ার মানে এই নয় যে এতে সব রোগীর জীবন বাঁচবে। সে কারণেই এখানে চিকিৎসকদের সিদ্ধান্ত নেবার বিষয় থাকে যে কখন তারা মনে করবেন সেই রোগীর আর বাঁচার সম্ভাবনা নেই এবং ভেন্টিলেটার চিকিৎসা বন্ধ করে দিতে হবে।

বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে জানা যায়, লন্ডনের রয়াল ফ্রি হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের প্রধান নার্স জুয়ানিতা নিত্তলা। দক্ষিণ ভারতে জন্ম নিত্তলা ইংল্যান্ডের জাতীয় স্বাস্থ্য সেবায় (এনএইচএস) কাজ করছেন গত ১৬ বছর ধরে। তিনি নিবিড় পরিচর্যা সেবায় বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত নার্স। ৪২ বছরের এই নার্স বলেন, ভেন্টিলেশন বন্ধ করাটাই আমার কাজ। তিনি বলেন, ভেন্টিলেটার বন্ধ করে দেয়াটা খুবই মানসিক চাপের এবং কষ্টের মুহূর্ত। আমার মাঝে মাঝে মনে হয় ওই ব্যক্তির মৃত্যুর জন্য আমিই দায়ী।

এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহে এক সকালে নিত্তলা যখন তার শিফটে যোগ দিলেন নিবিড় পরিচর্যা ইউনিট (আইসিইউ) -এর ডাক্তার তাকে বললেন কভিড -১৯ এর একজন রোগীর চিকিৎসা তাকে বন্ধ করে দিতে হবে। রোগী ছিলেন পেশায় একজন কমিউনিটি নার্স। ৫০ এর কোঠায় বয়স। নিত্তলা তার মেয়েকে জানালেন গোটা প্রক্রিয়া সম্পর্কে। তিনি বলেন, আমি তাকে আশ্বস্ত করলাম তার মায়ের কোনো কষ্ট হচ্ছে না। তিনি খুব প্রশান্তির মধ্যে আছেন। আমি জিজ্ঞেস করলাম তার মায়ের কোনো শেষ ইচ্ছা আছে কি-না এবং ধর্মীয়ভাবে তিনি কিছু চান কি-না।

আইসিইউতে বিছানাগুলো পাশাপাশি। নিত্তলার চারপাশে যত রোগীর তিনি দেখাশোনা করছেন তারা সবাই অচেতন। তিনি বলেন, সব রোগীই গুরুতর অসুস্থ। আমি ওই রোগীর চারপাশ পর্দা দিয়ে ঘিরে দিলাম। সবরকম অ্যালার্ম বা সতর্কসঙ্কেত বন্ধ করে দিলাম।

সব চিকিৎসা কর্মী কয়েক মুহূর্তের জন্য কাজ বন্ধ রাখলেন। নার্সরা কথা বলা বন্ধ করে দিলেন। রোগীর সম্মান এবং তাকে স্বস্তি দেওয়াটাই তখন আমাদের অগ্রাধিকার,” বললেন নিত্তলা। নিত্তলা রোগীর কানের কাছে ফোন ধরলেন এবং তার মেয়েকে বললেন “কথা বলুন”। তিনি বলেন, আমার কাছে ওটা একটা ফোন কল মাত্র। কিন্তু তার পরিবারের জন্য ওটা ছিল বিশাল পাওয়া। ওরা চেয়েছিলেন ভিডিও কল করতে। কিন্তু দুভার্গ্যবশত আইসিইউ-র ভেতরে মোবাইল ফোন ব্যবহারের অনুমতি নেই।

রোগীর পরিবারের ইচ্ছা অনুযায়ী, নিত্তলা কমপিউটার থেকে একটা নির্দিষ্ট মিউজিক ভিডিও বাজালেন। এরপর তিনি গিয়ে ভেন্টিলেটারের সুইচটা বন্ধ করে দিলেন। তিনি বলেন, আমি তার পাশে বসলাম, যতক্ষণ না প্রাণবায়ু বেরলো আমি তার হাত ধরে পাশে বসে রইলাম। ভেন্টিলেটার যন্ত্র বন্ধ করে দেবার পাঁচ মিনিটের মধ্যে ওই রোগী মারা গেলেন। আমি মনিটারে দেখলাম আলো ফ্লাশ করছে এবং মনিটারের পর্দায় হৃদস্পন্দন থেমে যাবার যান্ত্রিক সঙ্কেত।

নিঃশ্বাস নেবার জন্য সবরকম সহায়তা সরঞ্জাম এবং চিকিৎসা বন্ধ করে দেবার সিদ্ধান্ত নেন শুধু ডাক্তাররা এবং সেটা তারা নেন খুবই সতর্কতার সঙ্গে সব দিক বিবেচনা করে, যেমন রোগীর বয়স, তার আর কোন অসুখ আছে কি-না, তিনি চিকিৎসায় কেমন সাড়া দিচ্ছেন, তার সেরে ওঠার সম্ভাবনা কতটা, সবদিক বিশ্লেষণ করে।

তাকে ঘুম পাড়িয়ে রাখার জন্য নলের মাধ্যমে যেসব ওষুধ দেয়া হচ্ছিল সেসব নল খুলে দিলেন নিত্তলা। রোগীর মেয়ে যেহেতু জানতেন না যে কী হচ্ছে, তিনি তখনও তার মায়ের সঙ্গে কথা বলে যাচ্ছিলেন। তিনি ফোনে তাকে কিছু প্রার্থনার কথা শোনাচ্ছিলেন। নিত্তলার খুব কষ্ট হচ্ছিল তাকে বলতে, কিন্তু তারপরেও ফোনটা নিজের হাতে নিয়ে তাকে বলতে হল তার মা মারা গেছেন। একজন নার্স হিসেবে  একজন রোগী মারা যাবার সঙ্গে সঙ্গেই তার দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। তিনি বলেন, একজন সহকর্মীর সাহায্য নিয়ে আমি তাকে পরিষ্কার করলাম, সাদা কাপড়ে মুড়ে তার লাশ বডি ব্যাগে ঢোকালাম আর ব্যাগ বন্ধ করার আগে আমি রোগীর কপালে ক্রশ চিহ্ন এঁকে দিলাম ধর্মীয় রীতি মেনে।

করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের আগে কোনো রোগীর চিকিৎসা বন্ধের আগে ডাক্তারা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতেন। কৃত্রিম শ্বাসব্যবস্থার যন্ত্র বন্ধ করে দেবার আগে নিকট আত্মীয়দের আইসিইউতে ঢুকতে দেয়া হতো। এখন করোনাভাইরাস থেকে সংক্রমণের আশংকায় বিশ্বের বহু দেশে এটা বন্ধ হয়ে গেছে। একাকী এভাবে মারা যাওয়াটা গভীর দুঃখের, নিত্তলা বলছিলেন। তিনি বলছেন যারা মৃত্যু পথযাত্রী তাদের সাহায্য করতে পারার মধ্যে দিয়ে মানসিক যন্ত্রণা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা তিনি করছেন। তিনি এমন রোগী দেখেছেন যারা শ্বাস নিতে পারছেন না, যাদের দম আটকে যাচ্ছে, এটা চোখে দেখা খুবই কষ্টের।

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Blocker Detected

Please Remove your browser ads blocker