খেলাধুলা

প্রিয় অধিনায়কের বিদায়ী ম্যাচে দর্শকের ঢল

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচ উপভোগ করতে দর্শকদের ঢল নেমেছে। বিকেল সাড়ে চারটায় বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং চলাকালে যখন বৃষ্টি নামে তখনও গ্যালারিজুড়ে অপেক্ষায় হাজার হাজার দর্শক। দর্শকরা বলছেন, জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফির শেষ ম্যাচের সাক্ষী হতে তারা স্টেডিয়ামে এসেছেন। তারা শেষ পর্যন্ত খেলা উপভোগ করতে চান। এজন্য বৃষ্টি থামার অপেক্ষায় আছেন।

এর আগে আজ শুক্রবার দুপুর থেকে স্টেডিয়ামে এসে জড়ো হতে থাকেন ক্রিকেট পাগল দর্শকরা। জুমআ’র নামাজের পর মাঠে দর্শক বাড়তে থাকে। গ্রান্ড স্ট্যান্ড গ্যালারি, ওয়েস্টার্ন গ্যালারি এমনকি গ্রীণ গ্যালারিতে দর্শকের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়, যা গত দুই ম্যাচে হয়নি।

বৃষ্টি শুরু হলে পশ্চিম গ্যালারিতে থাকা দর্শকরা অনেকে নিরাপদ দূরত্বে চলে যান। তখনও গ্রান্ডস্ট্যান্ড গ্যালারি ছিল দর্শকে পূর্ণ। ১৫ মিনিট পর বৃষ্টি অনেকটা থেমে যায়। তখন আবারো কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় গ্যালারি। পশ্চিম গ্যালারিতে থাকা আহমেদ তানভীর নামের একজন দর্শক বলেন, বাংলাদেশ দলের খেলা দেখতে এসেছি। বৃষ্টি থামলে খেলা শুরু হবে। আমরা ততক্ষণ অপেক্ষায় আছি।

বাপন বাপ্পি নামের আরেকজন দর্শক বলেন, ‘জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ইতোমধ্যে সিরিজ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচটি খুববেশি গুরুত্ব বহন না করলেও মাশরাফির অধিনায়কত্বের শেষ ম্যাচের সাক্ষী হতে আমরা মাঠে এসেছি।’

সিলেটের সিনিয়র ক্রীড়া সাংবাদিক বদরুদ্দোজা বদর বলেন, ‘সিলেট স্টেডিয়ামে সবসময়ই দর্শক বেশি হয়। গত দুই ম্যাচে দর্শক কিছুটা কম ছিল। তবে, আজকের ম্যাচে মাশরাফির বিদায় অন্যতম একটা কারণ হতে পারে।’

বিকেল ৫টার দিকে বৃষ্টির গতি আবারও বেড়ে যায়। তখনও গ্যালারিতে দর্শকদের হইহুল্লুড় শব্দে মাঠে খেলার আবহ অনুভব হয়। সাড়ে ৫টার দিকে বৃষ্টি থামলে চারিদিকে আরো উত্তাপ ছড়ায়। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে দারুন সূচনা করেছিল বাংলাদেশে। বৃষ্টি শুরুর আগে ওপেনিং জুটিতে লিটন দাসের সেঞ্চুরি(১০২) ও তামিম ইকবালের ৭৯ রানে ছুটছে টিম টাইগার। এর আগে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় জিম্বাবুয়ে।

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Blocker Detected

Please Remove your browser ads blocker