দুর্ঘটনাবাংলাদেশ

বাংলাদেশিরাও পা রাখছে ভয়ংকর স্বপ্নযাত্রায় !

এ এক ভয়ংকর মৃত্যুপথযাত্রা! গহীন অরণ্য, গভীর সমুদ্র, তপ্ত মরুভূমি পাড়ি দিয়ে ভয়ংকর স্বপ্নযাত্রায় পা রাখছে অনেক বেকার যুবক। এর মধ্যে বাংলাদেশিরাও রয়েছেন। ভয়ংকর এই স্বপ্নযাত্রায় সর্বস্ব বিক্রি করে দালালদের হাতে তুলে দিচ্ছেন টাকা-পয়সা শেষ সম্বল। কেউ কেউ অবৈধ পথে স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছাতে পারলেও অধিকাংশই হন ভাগ্যাহত। ভাগ্য সহায় হলে অনেকের জায়গা হয় কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে। বাকিদের কারো কারো সলিল সমাধি হয় নৌকাডুবিতে। কেউ প্রাণ হারায় অনাহারে অর্ধাহারে, নানা রোগ-শোকে। তারপরেও জীবনবাজি রেখে মৃত্যুকে হাতে নিয়ে এক মরীচিকার পেছনে ছুটছে হাজার হাজার বাংলাদেশি তরুণ। তারা যেতে চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন উন্নত দেশে। তবে যে উন্নত জীবনের টানে তারা ধাবিত হয় সেসব দেশ সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই নেশায় পাওয়া এই যুবকদের। তারা যা শোনেন তা সবই লোকমুখে এবং দালালদের কাছ থেকে।

উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপ যেতে শরণার্থী হিসাবে আশ্রয় পাওয়া ট্রানজিট দেশ লিবিয়া। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার পথ আরো কঠিন। কিন্তু জীবনের সর্বস্ব বাজি রাখা এই বেকার তরুণরা উন্নত জীবনের জন্য মৃত্যুভয়কে তুচ্ছ করে অবৈধ পথে পৌঁছাতে চায় স্বপ্নের দেশে। এ জন্য তাদের পাড়ি দিতে হয় দীর্ঘ কয়েক হাজার মাইল পথ। প্রথমে ঢাকা থেকে দুবাই। দুবাই থেকে সমুদ্র পাড়ি দিয়ে ব্রাজিল। এরপর বলিভিয়া, পেরু, ইকুয়েডর, পানামা সিটি, মেক্সিকো হয়ে জঙ্গলে লুকিয়ে থেকে, সমুদ্র পথ পেরিয়ে, পায়ে হেঁটে শেষ পর্যন্ত ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের স্যান সিদ্রো বর্ডার দিয়ে তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে। তবে অধিকাংশই সেখানে গিয়ে ধরা পড়ে। এই দীর্ঘ যাত্রার পর মার্কিন মুলুকের জেল থেকে শূন্য হাতে তাদের ফিরতে হয়। তবে যারা প্রাণে বেঁচে যান কেবল তারাই ফিরে আসে। অন্যদের পথেই মৃত্যু হয়।

প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে বিদেশ পাড়ি দিচ্ছে ৭ থেকে ৮ লাখ মানুষ। কেউ যাচ্ছে বৈধ পথে, কেউবা অবৈধ উপায়ে। অবৈধ উপায়ে দালাল ধরে যারা বিদেশে যাচ্ছেন তাদের অধিকাংশই সমুদ্র পাড়ি দিয়ে যায়। সম্প্রতি, লিবিয়া থেকে ইতালি যাবার পথে ভূমধ্যসাগরে ডুবে মরেছে ৬০ জন অভিবাসী। এর মধ্যে কমপক্ষে ৩৫ জনই বাংলাদেশি। এভাবে সমুদ্রপথে অবৈধভাবে বিদেশ পাড়ি দিতে গিয়ে প্রতিবছর হাজার হাজার বাংলাদেশি নিহত হচ্ছে। রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) তথ্য মতে, গত ১০ বছরে সমুদ্রপথে বিদেশ যেতে বাংলাদেশি নিহত বা নিখোঁজ হয়েছে ১০ হাজার। পাচার হয়েছে ২ লাখ ৬৫ হাজার মানুষ। আর বিদেশি কারাগারে বাংলাদেশি বন্দি রয়েছে ১৫ হাজারেরও বেশি।

এদিকে, জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তথ্য মতে, সামপ্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সমুদ্র পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশি বিদেশে যায় ২০১৫ সালে। বছরটিতে বঙ্গোপসাগর রুট ব্যবহার করে অন্তত ৯৪ হাজার অভিবাসন প্রত্যাশী পাচার হয়। এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. সি আর আবরার জানান, বিদেশে চাকরির আশায় সমুদ্র পাড়ি দিতে গিয়ে নিহত হবার দায় সরকার, দালাল এবং যারা যাচ্ছে তাদেরও আছে। বাংলাদেশে নিরাপদ অভিবাসন নিয়ে কাজ করছে এমন সংগঠনগুলো বলছে, সাগরপথে মানবপাচারের ঘটনায় দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। শ্রমবাজারও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ সমস্যার সমাধান করতে হলে বৈধভাবে বিদেশে যাওয়ার পথ সহজ করতে হবে। সেইসঙ্গে দালালদের দৌরাত্ম্য রোধে রাষ্ট্রকে কঠোর ভূমিকা রাখতে হবে।

বিভিন্ন গবেষণা সংস্থার তথ্য থেকে জানা যায়, প্রতি মাসেই এক বা একাধিক ট্রিপে রাতের আঁধারে ট্রলারে বা নৌকায় চেপে টেকনাফ, সেন্টমার্টিন ও কক্সবাজারের উপকূলীয় দ্বীপ থেকে মালয়েশিয়ার পথে রওনা হয় শত শত মানুষ। মানবপাচারকারীরা সারা দেশে ফাঁদ পেতে এজেন্টদের মাধ্যমে সংগ্রহ করছে বিদেশ গমনেচ্ছু এসব অসহায় দরিদ্র ব্যক্তিদের। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশি নাগরিকদের মালয়েশিয়ায় পাঠানোর কথা বলে ট্রলারে তোলার আগে প্রতিজনের কাছ থেকে ৪০-৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয় পাচারকারী চক্র। এরপর সাগরের মাঝপথে বা থাইল্যান্ডের জঙ্গলে তাদের জিম্মি করে পরিবারের কাছ থেকে জনপ্রতি আরো ২ থেকে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনাও ঘটছে। এদিকে, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের প্রায় পৌনে এক লাখ অভিবাসী আছে। যাদের বৈধতা পরীক্ষা করে দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। এ ব্যাপারে জার্মানিসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশ বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করছে। তারা প্রয়োজনে ফেরত পাঠানো ব্যক্তিদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ নিতে আগ্রহী বলেও জানা গেছে।
সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Blocker Detected

Please Remove your browser ads blocker